খাদ্য ও পুষ্টি (Child Nutrition),  খাদ্যাভ্যাস

শিশুর কোষ্ঠকাঠিন্য

এই ভাগ দৌড়ের যুগে সময়ের অভাবে মায়েরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে বাচ্চাদের প্যাকেট জাত,   ইনস্ট্যান্ট তৈরী খাবারে না চাইতেও অভ্যাস করিয়ে ফেলছেন, তারপর আছে বাচ্চাদের শাক সবজির গ্রহণে অনীহা, ফলস্বরূপ constipation  বা কোষ্টকাঠিন্যর মতো সমস্যা বাচ্চাদের মধ্যে লক্ষ্য করা যাচ্ছে। প্রাথমিক ভাবে কয়েকটা বিষয় খেয়াল রাখলে এই সমস্যা এড়ানো সম্ভব।

কোষ্ঠকাঠিন্যের সাধারণ কয়েকটি উপসর্গ হলো….

  • সপ্তাহে মলত্যাগের সংখ্যা তিনবার থেকেও কম হবে।
  • মলের ধরণ শক্ত, শুষ্ক এবং যেগুলো সহজে বের হতে চাইবে না।
  • মলত্যাগের সময় বাচ্চা পেটে ব্যথা  মোচর  অনুভব করবে।
  • গ্যাস, বমিবমি ভাব, খাদ্য গ্রহনে অনীহা লক্ষ্য করা যায়।

 এর প্রধান কারণগুলো কী কী

শিশুদের কোষ্ঠকাঠিন্য বেশ কিছু কারণ থাকতে পারে ,এদের মধ্যে কিছু কারণ সহজে এড়ানো সম্ভব যদি তা চিহ্নিত করা যায়।

  • সবার প্রথমে আমাদের লক্ষ্য করতে হবে বাচ্চার খাদ্য তালিকা,সাধারণত এই বয়সে বাচ্চারা সঠিক পরিমানে জল, শাকসবজি খায়  না,এছাড়া খাদ্য তালিকায় ফাস্ট ফুড,জাঙ্ক ফুড এর আধিক্য র কারণে বাচ্চারা কোষ্ঠ্যকাঠিন্যর মতো সমস্যায় ভোগে।
  • পারিবারিক সমস্যা বা জন্মগত ত্রুটি,
  • পাচনতন্ত্র সম্পর্কিত সমস্যার কারণে হতে পারে,
  • নির্দিষ্ট খাবার সহ্য না হওয়া বা কিছু খাবারে এলার্জি থাকার কারণে হতে পারে।
  • দুগ্ধজাত দ্ৰব্য( দুধ/ চীজ)এর অধিক গ্রহন কোষ্ঠকাঠিন্যর সমস্যা তৈরী করে।
  • ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থেকেও কোষ্ঠকাঠিন্য হয়।
  • মলত্যাগের সঠিক প্রশিক্ষণ না দিলেও এই সমস্যা হয়।
  •  কিছুক্ষেত্রে এই বয়সী বাচ্চারা খেলাধুলার প্রতি বেশি মনোযোগী হওয়ায় এদের মধ্যে ইচ্ছাকৃত মলত্যাগ না করা বা চেপে রাখার  অভ্যাস দেখা যায় । সেক্ষত্রে ও কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা যায়।

 কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যায় যে সমস্ত খাবারগুলো খাদ্য তালিকায় রাখতে হবে সেগুলি হল

  • ফল ও শাকসবজি- যেকোনো ধরনের টক ফল যেমন কমলালেবু মুসাম্বি আনারস এছাড়াও নাশপাতি, কলা,আপেল, আঙ্গুর এবং সব ধরণের ফল।
  • ড্রাই ফ্রুটস( বাদাম, কিসমিস)।
  • শাক সবজির মধ্যে সমস্ত ধরনের সবুজ শাকসবজি যেমন পালংশাক, এছাড়াও ডুমুর,লাউ, লাল আলু।
  • দই, prebiotic সমৃদ্ধ হওয়ায় লস্যি বা ছাঁচ ও দেওয়া যেতে পারে।
  • প্রয়োজনের তুলনায় জলের কম গ্রহন অন্যতম প্রধান কারণ কোষ্ঠকাঠিন্যর, তাই জল বা জলীয় উপাদান( ফলের রস, ডাবের জল, লস্যি, স্যুপ) খাদ্য তালিকায় রাখতে হবে।

 কোষ্ঠকাঠিন্যে যে সমস্ত খাবারগুলো খাদ্য তালিকা থেকে বর্জন করা উচিত সেগুলি হল

  • ময়দা ও ময়দার তৈরি খাবার হোয়াইট পাস্তা, হোয়াইট ব্রেড,ম্যাগি,চাউমিন।
  • দই খাদ্য তালিকায় রাখা গেলেও দুধ খাদ্য তালিকা থেকে বাদ রাখাই ভালো
  • জাঙ্ক ফুড, ফাস্টফুড খাদ্যতালিকা থেকে বাদ রাখতে হবে।
  • কাঁচা কলা, সেদ্ধ আপেল, বেদানার রস খাদ্য তালিকা থেকে বাদ রাখুন।

 

সাধারণ কয়েকটা বিষয় মেনে চললেই, কোষ্ঠকাঠিন্যর সমস্যা এড়ানো গেলেও, যদি 2সপ্তাহের বেশি সময় বাচ্চা মলত্যাগ না করে,

খাবার গ্রহনে অনীহা, পেট ফাঁপা, জ্বর, ওজন কমে যাওয়ার মতো উপসর্গ লক্ষ্য করেন অবশ্যই শিশু বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন

 

ধন্যবাদ

লিখলেন: 

Dt. Pinky Chatterjee

Consultant Dietitian (Paediatric)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *